ঢাকা , শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
রমজানে মাধ্যমিক স্কুল খোলা থাকবে ১৫ দিন, প্রাথমিক স্কুল ১০ দিন খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে টেকনাফ সীমান্তের হোয়াইক্যং এলাকা দিয়ে আজ অস্ত্র নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে মিয়ানমারের সেনা সাদ সাহেব রুজু করার পর দেওবন্দের মাসআলা খতম হয়ে গেছে : মাওলানা আরশাদ মাদানী চলছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের দ্বিতীয় দিনের বয়ান পুলিশ সদস্যসহ বিশ্ব ইজতেমায় ৭ জনের মৃত্যু বর্তমান সরকারের সঙ্গে সব দেশ কাজ করতে চায়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়পুরহাটে স্কুলছাত্র হত্যায় ১১ জনের মৃত্যুদণ্ড দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু ‘শরীফ থেকে শরীফা’ গল্প পর্যালোচনায় কমিটি গঠন করলো শিক্ষা মন্ত্রণালয়

জামালপুরে যমুনার পানি বাড়ছে হু হু করে

  • নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : ০২:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ জুন ২০২০
  • ১২৬৬ পঠিত

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে জামালপুরে যমুনা নদীর পানি হু হু করে বাড়ছে। এতে চারটি উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়েছে। আজ রোববার বেলা ১১টার দিকে যমুনা নদীর বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে ৩৪ সেন্টিমিটার পানি বেড়ে বিপৎসীমার ৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

নদী তীরবর্তী চারটি উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন প্রায় ১০ হাজার মানুষ। গত কয়েক দিন ধরে পানি অব্যাহতভাবে বেড়ে যাওয়ায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হতে শুরু করেছে। একই সঙ্গে তলিয়ে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চলের ফসলি জমি।

জামালপুরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপের নিয়ন্ত্রক আব্দুল মান্নান বলেন, দ্রুতগতিতে যমুনার পানি বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৪ সেন্টিমিটার পানি বেড়ে বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। যেভাবে পানি বাড়ছে, এতে নতুন নতুন আরও এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা আছে।

স্থানীয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ইসলামপুর উপজেলার চিনাডুলী, নোয়ারপাড়া, কুলকান্দি, পাথর্শী, সাপধরী, বেলগাছা; সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা, পিংনা, কামরাবাদ, পোগলদিঘা; দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চিকাজানী, চুকাইবাড়ী, বাহাদুরাবাদ এবং মাদারগঞ্জ উপজেলার চরপাকেরদহ, জোড়খালি ও বালিজুড়ী ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে।

চিনাডুলী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল ছালাম প্রথম আলোকে বলেন, নদীর পানি হু হু করে বাড়ছে। এই ইউনিয়নের প্রায় সব এলাকায় পানি ঢুকে গেছে। অনেক মানুষ এখন পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। গতকাল থেকে অনেকেই ঘরবাড়িতে আটকা পড়েছেন। এসব এলাকায় এখনই খাদ্য সাহায্যের প্রয়োজন। এমনিতেই এসব অঞ্চলের মানুষ নদী ভাঙনের শিকার। তাদের দিনে এনে দিনে খাওয়া অবস্থা।

জামালপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক প্রথম আলোকে বলেন, যমুনার পানি বাড়তে শুরু করেছে। নিম্নাঞ্চলের কিছু স্থানে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। বন্যা মোকাবিলায় জেলা দুর্যোগ প্রতিরোধ কমিটির সভা হয়েছে। বন্যা মোকাবিলায় জেলা প্রশাসনের সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া আছে। একই সঙ্গে বন্যা সংশ্লিষ্ট উপজেলার ইউএনওদের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। মানুষকে সব ধরনের সহায়তা করার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

Tag :
জনপ্রিয়

রমজানে মাধ্যমিক স্কুল খোলা থাকবে ১৫ দিন, প্রাথমিক স্কুল ১০ দিন

জামালপুরে যমুনার পানি বাড়ছে হু হু করে

প্রকাশিত : ০২:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ জুন ২০২০

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে জামালপুরে যমুনা নদীর পানি হু হু করে বাড়ছে। এতে চারটি উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়েছে। আজ রোববার বেলা ১১টার দিকে যমুনা নদীর বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে ৩৪ সেন্টিমিটার পানি বেড়ে বিপৎসীমার ৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

নদী তীরবর্তী চারটি উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন প্রায় ১০ হাজার মানুষ। গত কয়েক দিন ধরে পানি অব্যাহতভাবে বেড়ে যাওয়ায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হতে শুরু করেছে। একই সঙ্গে তলিয়ে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চলের ফসলি জমি।

জামালপুরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপের নিয়ন্ত্রক আব্দুল মান্নান বলেন, দ্রুতগতিতে যমুনার পানি বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৪ সেন্টিমিটার পানি বেড়ে বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। যেভাবে পানি বাড়ছে, এতে নতুন নতুন আরও এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা আছে।

স্থানীয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ইসলামপুর উপজেলার চিনাডুলী, নোয়ারপাড়া, কুলকান্দি, পাথর্শী, সাপধরী, বেলগাছা; সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা, পিংনা, কামরাবাদ, পোগলদিঘা; দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চিকাজানী, চুকাইবাড়ী, বাহাদুরাবাদ এবং মাদারগঞ্জ উপজেলার চরপাকেরদহ, জোড়খালি ও বালিজুড়ী ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে।

চিনাডুলী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল ছালাম প্রথম আলোকে বলেন, নদীর পানি হু হু করে বাড়ছে। এই ইউনিয়নের প্রায় সব এলাকায় পানি ঢুকে গেছে। অনেক মানুষ এখন পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। গতকাল থেকে অনেকেই ঘরবাড়িতে আটকা পড়েছেন। এসব এলাকায় এখনই খাদ্য সাহায্যের প্রয়োজন। এমনিতেই এসব অঞ্চলের মানুষ নদী ভাঙনের শিকার। তাদের দিনে এনে দিনে খাওয়া অবস্থা।

জামালপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক প্রথম আলোকে বলেন, যমুনার পানি বাড়তে শুরু করেছে। নিম্নাঞ্চলের কিছু স্থানে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। বন্যা মোকাবিলায় জেলা দুর্যোগ প্রতিরোধ কমিটির সভা হয়েছে। বন্যা মোকাবিলায় জেলা প্রশাসনের সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া আছে। একই সঙ্গে বন্যা সংশ্লিষ্ট উপজেলার ইউএনওদের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। মানুষকে সব ধরনের সহায়তা করার উদ্যোগ নেওয়া হবে।